বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস-২
বাংলা ভাষার উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ
Next >>
কোন যুগে বাংলা লিপির গঠনকার্য স্থায়ীরূপ লাভ করে? উঃ প্রাচীন যুগে।
বাংলার প্রথম মুদ্রন প্রতিষ্ঠানের নাম কি? উঃ শ্রীরামপুর মিশন।
কত সালে ‘শ্রীরামপুর মিশন’ প্রতিষ্ঠিত হয়? উঃ ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দে।
বাংলা ছাড়া ব্রাহ্মী লিপি থেকে আর কোন লিপির উদ্ভব ঘটেছে? উঃ সিংহলী, শ্যামী, নবদ্বীপি, তিব্বতী ইত্যাদি।
বাংলা অক্ষর বা বর্ণমালা কোন সময়ে একচ্ছত্র প্রভাব বিস্তার লাভ করে? উঃ খ্রিষ্টিয় দশম ও একাদশ শতাব্দীর মধ্যে।
ব্রাহ্মী লিপির বিবর্তনের ধারায় কোন বর্ণমালা থেকে বাংলা বর্ণমালার উৎপত্তি? উঃ পূর্ব ভারতীয় কুটিল বর্ণমালা থেকে।
ব্রাহ্মী লিপির পূর্ববর্তী লিপি কোনটি? উঃ খরোষ্ঠী লিপি।
ভারতীয় লিপিমালার প্রাচীনতম রূপ কয়টি? উঃ দুইটি।
খ্রিষ্টপূর্ব ৩য় শতকে কোন শাসকের শাসনমালা ব্রাহ্মী লিপিতে উৎকীর্ণ পাওয়া যায়? উঃ সম্রাট অশোক।
বাংলা লিপি ও বর্ণমালার উদ্ভব হয়েছে কোন লিপি থেকে? উঃ কুটিল লিপি।
কোন যুগে বাংলা লিপি ও অক্ষরের গঠনকার্য শুরু হয়? উঃ সেন যুগে।
কোন কোন লিপির উপর বাংলা লিপির প্রভাব বিদ্যমান? উঃ উড়িষ্যা মৈথিলি ও আসামী লিপি।
বাংলা গদ্যের বিকাশে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে? উঃ সাময়ীক পত্র।
বাংলা সাহিত্যের প্রথম নিদর্শন কি? উঃ চর্যাপদ।
চর্যাপদ রচনা করেন কারা? উঃ বৌদ্ধ সিদ্ধাচার্যগণ।
চর্যাপদ কোন যুগের নিদর্শন? উঃ আদি/ প্রাচীন যুগ।
চর্যাপদের পুঁথি কে এবং কখন আবিস্কার করেন? উঃ মহামহোপাধ্যায় হরপ্রসাদ শাস্ত্রী ১৯০৭ সালে।
চর্যাপদের রচনা কাল কত? উঃ সপ্তম -দ্বাদশ শতাব্দী।
চর্যাপদ কোথায় পাওয়া যায়? উঃ নেপালের রাজ দরবারের গ্রন্থাগারে।
চর্যাপদ কোন ভাষায় রচিত হয়? উঃ বঙ্গকামরুপী ভাষায়।
টীকাকার মুনিদত্তের মতানুসারে চর্যাপদের নাম কি? উঃ আশ্চর্য চর্যাচয়।
নেপালে প্রাপ্ত পুঁথিতে পদগুলির কি নাম দেয়া হয়েছে? উঃ চর্যাচর্য বিনিশ্চয়।
বাংলা ভাষার সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যায় কোন ভাষার? উঃ মুন্ডা ভাষার।
কোন লিপি থেকে বাংলা লিপির উদ্ভব ঘটেছে? উঃ ব্রহ্মী লিপি।
ভারতীয় লিপিমালার প্রাচীনতম রূপ কয়টি ও কি কি? উঃ দুইটি ক. খরোষ্ঠী, খ. বাহ্মী।
ভারতের মৌলিক লিপি কোন লিপিকে বলা বলে? উঃ ব্রাহ্মী লিপি।
চর্যাপদের ভাষাকে কে বাংলা ভাষা দাবি করেছেন? উঃ অধ্যাপক সুনীতি কুমার চট্টোপাধ্যয়।
আধুনিকের পন্ডিতগণের মতে, নেপালে প্রাপ্ত চর্যাপদের পুঁথির নাম কি ? উঃ চর্যাগীতি কোষ।
চর্যার প্রাপ্ত কোন সংখ্যক পদটি টীকাকার কর্তৃক ব্যাখ্যা হয়নি ? উঃ ১১ সংখ্যক পদ।
চর্যার প্রাপ্ত পুঁথিতে কোন কোন সংখ্যক পদে সম্পূর্ন পাওয়া যায় নি? উঃ ২৪, ২৫, ৪৮ সংখ্যক পদ।
চর্যার প্রাপ্ত কোন পদটির শেষাংশে পাওয়া যায় নি? উঃ ২৩ সংখ্যক পদ।
চর্যাগীতিকা হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কর্তৃক কবে প্রকাশিত হয়েছিল? উঃ ১৯১৬ সালে।

Footer